ই-পেপার মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম: ভৈরবে কোটা আন্দোলনকারী ও র‌্যাব-পুলিশের সংঘর্ষ, টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ        বিহারে বিদ‍্যুতের তারে তাজিয়া, বিদ‍্যুৎস্পৃষ্ট ২৪       ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে বিক্ষোভ চলছে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের টিয়ারশেল নিক্ষেপ        পাটের সোনালী আঁশে লাভের স্বপ্ন দেখছেন কৃষকরা        ঢাকাসহ সারাদেশে ২২৯ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন       কোটা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় জাতিসংঘের উদ্বেগ       গ্রাম আদালতের বিচারের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়ছে, কমছে হয়রানী-জটিলতা      




প্রশ্নফাঁসে গ্রেফতার নোমান সিদ্দিকী এলাকায় বড় দানবীর
রামগতি (লক্ষ্মীপুর) সংবাদদাতা
Published : Wednesday, 10 July, 2024 at 12:45 PM
বিসিএসসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় ৮জুলাই রাজধানী তেকে গ্রেফতার হওয়া ১৭জনের একজনের বাড়ি লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলায়। তার নাম নোমান সিদ্দিকী। বয়স ৪৪ বছর। বাড়ি উপজেলার ৬নং চরআলগী ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড ইদগাহ এলাকায়। বাবার নাম মো: আবু তাহের এবং মায়ের নাম হালিমা খাতুন। দুই ভাই এবং দুই বোনের মধ্যে তৃতীয় হলেন আলোচিত এ নোমান সিদ্দিকী। বাবা আবু তাহের বেশ কয়েক বছর আগে পরলোকগমন করেন। বর্তমানে মা হালিমা খাতুনকে নিয়ে থাকছেন রাজধানীর গুলশান এলাকায়। আসল নাম নোমান সিদ্দিকী হলেও এলাকার মানুষের কাছে তিনি নোমান মিয়া নামে পরিচিত। কাছের মানুষকে বলে বেড়ান তিনি সাবেক এক মন্ত্রীর নিকটাত্মীয়কে বিয়ে করার কারনেই তিনি এতো অর্থবিত্তের মালিক হয়েছেন। 

রামগতিতে অর্ধকোটি টাকা মূল্যের বাড়ি এবং অঢেল সম্পত্তি
মায়ের নামে প্রতিষ্ঠা করেছেন মাদ্রাসাসহ একাধিক প্রতিষ্ঠান
সেনা বাহিনীর চাকুরী ছেড়ে জড়িয়ে পড়েন প্রশ্নফাঁস চক্রে

সরেজমিনে গিয়ে বিভিন্ন মানুষের সাথে কথা বলে জানা যায়, নোমান সিদ্দিকী স্থানীয় চরমেহার আজিজিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। এ সময় সেনাবাহিনী থেকে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটলিয়ন (র‌্যাব) এ সংযুক্ত হয়ে দায়িত্বপালন করেছেন এক বছর। পরবর্তীতে ২০১৩সালে সেনাবাহিনীর ওয়ারেন্ট অফিসার পদ থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নিয়ে জড়িয়ে পড়েন প্রশ্নফাঁসসহ নানান অপকর্মের সাথে। তার গ্রেফতারের খবরে ইতিমধ্যে তার গ্রামের বাড়িতে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য তথ্য সংগ্রহে কাজ শুরু করেছে।  

২০২২সালেও এ নোমান সিদ্দিকী নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের কান্ডে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে দুই মাস কারাগারে আটক ছিলেন। কারাগার থেকে ছাড়া পেয়ে আবারো যুক্ত হন একই কাজে। এলাকাবাসীদের বেশ কয়েকজন জানান, সেনাবাহিনীর মত গুরুত্বপূর্ন চাকরী ছেড়ে হঠাৎ করেই যেন আলাদ্বীনের চেরাগ হাতে পেয়েছেন নোমান। দু সন্তান নিয়ে ঢাকায় বসবাস করলেও বছরে দু একবার এলাকায় আসেন। নিজ গ্রামে প্রতিষ্ঠা করেছেন হালিমা খাতুন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসাসহ বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। গ্রামে আসলেই বিভিন্ন মসজিদ মাদ্রাসা, মাজারসহ গরীব দুঃখীদের অকাতরে দান-দক্ষিনা করতেন তিনি। গ্রামের বাড়িতে প্রায় অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে করেছেন একতলা বাড়ি। রাজধানীতে দু সন্তানকে পড়াচ্ছেন নাম করা ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে। এছাড়াও নামে-বেনামে আছে অঢেল সম্পত্তি। 

প্রকাশে অনিচ্ছুক তার ঘনিষ্ট একাধিকজন জানান, এলাকায় আসলেই তিনি তার নানান অর্জনের গল্প করতেন। ঢাকার গুলশান, উত্তরা ও মিরপুর এলাকায় তার নামে চারটি ফ্ল্যাট এবং পূর্বাচলে রয়েছে ৫কাঠার একটি প্লট। নামে বেনামে আছে বেশ কয়েকটি ব্যাংকে আছে অঢেল টাকা। গত কুরবানী ইদে দুটি গরু দিয়ে কুরবানী দিয়ে একটি বিলিয়েছেন এলাকায়। প্রায় দশ লক্ষ টাকা ব্যয়ে তৈরি করেছেন ইদগাহ ও মাদ্রাসা। 

প্রশ্নফাঁস কান্ডে গ্রেফতার হওয়া ১৭জনের তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর নোমান সিদ্দিকী রামগতির স্থায়ী বাসিন্দা হিসেবে চেনার পর অনেকই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবিসহ পোস্ট দিতে থাকেন। সর্বপ্রথম ছবিসহ পূর্ণ ঠিকানা ফেসবুকে পোস্ট করেন গোলাম রব্বানী নামে এক গণমাধ্যমকর্মী। এরপরই এটি জেলাজুড়ে ভাইরাল টপিকে পরিনত হয়। নাম ঠিকানা প্রকাশ হওয়ার পর নোমান সিদ্দিকীর আলোচিত বাড়ি দেখতে অনেকেই আসছেন। তাদেরই কয়েকজন সায়েম, মজিদ, সাকলায়েন, রাজু জানান, রামগতিতে এমন অপরাধে জড়িত কেউ রামগতিতে থাকতে পারে এটা বিশ্বাসই হয় না। আমরা চাই তার বিচার হোক। 

জানা যায়, গত ১২বছর ধরে পিএসসি’র অধীনে ৩০টি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় গ্রেফতার সাবেক সেনা সদস্য নোমান সিদ্দিকীসহ ১৭জনের ব্যাংক হিসাব জব্দ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ৯জুলাই মঙ্গলবার তাদের ব্যাংক হিসাব জব্দ করা হয়। এর আগে রাজধানীর পল্টন থানায় হওয়া এক মামলায় ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা হকের আদালত নোমান সিদ্দিকীসহ ১০জনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন। এদিন সকালে এ মামলায় গ্রেফতার হওয়া আরো ১৬আসামীকে আদালতে হাজীর করা হয়। কারগারে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়া ৭জনের মধ্যে ছিলেন না রামগতির এ নোমান। তাকেসহ অপর ৯ আসামীকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। পরে আসামীদের আইনজীবী তাদের জামিন চেয়ে আবেদন করলে উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ১০আসামীর জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। 
চরআলগী ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন লিটন চৌধুরী এ সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, নোমানের বাড়ি আমার ইউনিয়নে। তিনি প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছেন বলে জানি। 

রামগতি থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: মোসলেহ উদ্দিন জানান, তার গ্রেফতার ও এ নিয়ে কাজ করছে ঢাকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এজহারে আসামী হিসেবে নোমান সিদ্দিকীর নাম রয়েছে। এ বিষয়ে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে।





আরও খবর


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে.এম. বেলায়েত হোসেন
৪-ডি, মেহেরবা প্লাজা, ৩৩ তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত এবং মনিরামপুর প্রিন্টিং প্রেস ৭৬/এ নয়াপল্টন, ঢাকা থেকে মুদ্রিত।
পিএবিএক্স: ৪১০৫২২৪৫, ৪১০৫২২৪৬, ০১৭৭৫-৩৭১১৬৭, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ৪১০৫২২৫৮
ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
পিএবিএক্স: ৪১০৫২২৪৫, ৪১০৫২২৪৬, ০১৭৭৫-৩৭১১৬৭, বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন: ৪১০৫২২৫৮
ই-মেইল : [email protected], [email protected], [email protected]